IQ TEST (We R Intelligent)

লেখকঃ【】মন্জুৱুল,,,ইসলাম,,,বাবু,,,৷৷【】,,,,,,,,,,, ,,,,,,,,,,,, ,,,,,,, ,, ,,,,,, ,,, ,,,,,,, ,,,,,,, ,,,,,,,,,,,,,,যে পাঁচটি অব্যর্থ উপায়ে প্রশ্ন ফাঁসনা করেই পাশের হার এবং এপ্লাসের সংখ্যা বাড়ানো যাবে-১. পরীক্ষা হবে। কিন্তু এজন্য ছাত্র-ছাত্রীকে কষ্ট করে সকালে ঘুমথেকে উঠে হলে আসতে হবে না।প্রশ্ন পৌছে যাবে ছাত্র-ছাত্রীরফেসবুক আইডির ইনবক্সে।পরীক্ষার্থী নির্দিষ্ট সময়েরমধ্যে কপিপেষ্টকরে কিংবা দেখে দেখে লিখে পরীক্ষারখাতা ইনবক্সেই জমা দিতে হবে।কপিপেস্ট করলে কার্টেসি দেবারপ্রয়োজন নেই। কার্টেসি দিলেওপরীক্ষক কার্টেসি কেটে দেবারসর্বক্ষমতা রাখেন। কেউযদি বেয়াদবি করে প্রশ্নপত্র সিনকরে রিপ্লাই না দেয়, তবে পরীক্ষকতার হয়ে পরীক্ষা দিতে বাধ্যথাকিবেন।ভূয়া পরীক্ষার্থী না এটা প্রমাণেরজন্য সেলফি কিংবা ভিডিও চ্যাটকরার অপশন থাকতে পারে।*নারী পরীক্ষকহলে ইনবক্সে আজেবাজে ইমো দেয়া যাবে না।ইমো দিলে এক নম্বর কাটা,ইনবক্সে সালাম দিলে দশ নম্বর গ্রেসদেবারও নিয়ম থাকবে। (এ প্লাসনা পাইয়া যাইবো কই)২. এই ধরণের পরীক্ষা আজীবনের জন্যবন্ধ করে দেয়া হবে।পরীক্ষা সিস্টেমটা হবে ড্রাইভিং লাইসেন্সপাবার পরীক্ষার মত। কেউযদি মনে করে সে এসএসসি সার্টিফিকেটনিবে তবে সে এপ্লাই করবে।নির্দিষ্টদিনে তাকে ডেকে পরীক্ষা নেয়া হবে।চা পানি খেয়ে এ প্লাস নেবারব্যবস্থা স্বরুপ ক্ষমতারধর পিয়নএবং দারোয়ানও থাকবে।সার্টিফিকেটনিয়ে পরীক্ষার্থী ভি চিন্হদেখিয়ে বলবে "এ প্লাস, অসামশালা"।৩. কোন ধরণেরপরীক্ষা হবে না দেশে।নীলক্ষেতে জাল সার্টিফিকেটব্যবসাকে বৈধতা দিয়ে দিলেইহবে। দেশের এ প্লাস উৎপাদনের হারমুড়ি উৎপাদনের হারেরচেয়ে বেড়ে যাবে।শিক্ষামন্ত্রী হাসি হাসি মুখে ক্যামেরারসামনে পোজ দিয়ে বলবেন"কুটিকুটি এ প্লাস, শালা আমারমাথায়ও এত চুল নাই, টাকশালে এতটাকও বানায় না"৪. এ প্লাস, এ, এসব গ্রেডবিক্রি হবে হবে বিভিন্নদোকানে। যার যা সামথ্যসে অনুযায়ী দোকানথেকে রেজাল্ট কিনে আনবে। নিয়মঅনুযায়ী এ প্লাসের দাম একটুবেশী হবে। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিতদোকানে পাওয়া যাবে এ প্লাস ।সেসব এ প্লাসে শিক্ষামন্ত্রনালয়েরলোগো থাকবে। শিক্ষামন্ত্রনালয়ে সৌজন্যে এ প্লাসেরবিজ্ঞাপনের স্লোগানথাকবে "লোগো দেখে আসল এপ্লাস কিনুন"। এ প্লাসএসি দোকানে পাওয়া গেলোওগরীবরা ঠিকই ফুটপাথ থেকে এ প্লাসকিনবে। সংবাদ বেরুবে এ প্লাসব্ল্যাকে বিক্রি হচ্ছে ফুটপাথে।শিক্ষামন্ত্রী বলবেন "আসল এপ্লাসে সিল মেরে দিয়েছি,ফুটপাথে জাঙ্গিয়া ছাড়া কিছুইবিক্রি হচ্ছে না।তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরসিস্টেমে গলদ আছে"।৫.শেষ পদ্ধতি- পড়ালেখাই বাদ।পড়ালেখা বলে কিছু থাকবে না।শিশু জন্মাইলেই জোরকরে তাকে প্লাসদিয়ে দেয়া হবে। সেই শিশু বড় হবে।বড় হয়ে বন্ধুদের মাঝে বলবে "সোনারপ্লাসমুখে নিয়া জন্মাইছি আমি.........ধন্যবাদ নাহিদ আঙ্কেল!